১৩ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং , ২৮শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বার্তাটি লিখেছেন: বিপ্র দাস বিশু বিত্রম

আমার সম্পর্কে : নির্বাহী সম্পাদক
প্রচ্ছদ বিভাগ বাশু কথন

কেন শব্দ অবমাননা আইন দরকার?

আচ্ছা বানানকে এতটা গুরুত্ব দিতে বলছি কেন! আসলেই কি শুদ্ধ বানানে শব্দ লিখলে কোন লাভ বা না লিখলে কোন ক্ষতি আছে? নিচের কয়েকটা বাক্য পড়ার পরই এই প্রশ্নের উত্তর আপনি নিজেই বের করতে পারবেন। আসলেই শুদ্ধ বানানের চর্চা বা নজরদারিতার দরকার আছে কিনা।

নবম শ্রেণির শিক্ষার্থীকে পড়াচ্ছি রসায়ন এর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায়ের সবচেয়ে প্রয়োজনীয় পর্যায় সারণি। শিক্ষার্থীরা আমাকে Platinum কে বাংলা অক্ষরে প্লাটিয়াম লেখা সেটা দেখালো। আরেকটা বইতে বাংলাদেশকে লেখা বংলাদেশ!
কবিতার আসল শব্দ যায় পাল্টে অজানা শব্দে। ‘আন্তরজাতীক মাত্রী ভাষা উজ্জাপন ২০১৮’ ব্যানার লাগিয়ে ভ্রমণ করছেন তারা নির্বিঘ্নে। আবার সেদিন বসুন্ধরা যমুনা ফিউচার পার্কের সাইবোর্ডে ভাসছে Jamun Future Park. গত কাল থেকে তো রবীন্দ্রনাথ এর পিতার নাম মিয়া কালিফা এমনকি সানি লিওন বাদ থাকেননি রামকৃষ্ণ মিশন স্কুলের বাংলার প্রশ্নপত্রে। এর আগে ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান, জান্নাতুল এভ্রিলকেও টেনে আনা হয়। সরকারি প্রতিষ্ঠান বা স্কুলে তো খোদ সরকারী লেখা। ধুমপান, পুলিশ চেকপোষ্ট, ট্রাস্ট ওভারসীজ, ইষ্টার্ণ প্লাজা! ভুল এর শেষ আছে?

আরেকদিকে শব্দ বিকৃ্তি করা তো আমাদের অভ্যাসে পরিণত হয়েছে। আম্রে, তুম্রে, ফ্রান্স, কুব টেস।change হয়েছে cng. সংক্ষিপ্ততার প্রভাবে শব্দকেও ভুলতে বসেছি আমরা।
এরমধ্যে একুশে বইমেলাতে প্রকাশিত হলো অনলাইন সেলেব্রিটি রাবা খান রচিত বই ‘বান্ধobi’ এদিকে পয়লা বৈশাখের আগের দিন উত্তম আকাশের সিনেমা বয়ফ্রেND হলে হলে প্রকাশ পেলো। ওদিকে টেলিভিশনেও চলছে টকশো বাংলাTalk আর রাবা খানের দেখাদেখি অনেকেই বাংলার মধ্যে ইংরেজিকে যুক্ত করে বাংলাকে অবজ্ঞায় মেতে আছেন। যা স্পষ্ট ভুল এবং অপরাধ।
এভাবেই চলছে আমাদের দেশ! অথচ ভাষা আন্দোলন আর মুক্তিযুদ্ধ হয়েছিলো শুদ্ধ বাংলাকে প্রতিষ্ঠা করার লক্ষ্যে। আর আমরা মেতে আছি ভিনদেশি ভাষা আর বাংলিশে। এদিকে রাস্তা থেকে বই সব স্থানে বানান ভুল। থামানোর উপায় আছে? সমাধানে লাগবে শক্ত আইন বাস্তবায়ন।

বাংলাকে অবজ্ঞা এবং বানান ভুলকে আর বাড়তে দেওয়া যায়না। আগামী ২৩ এপ্রিল ২০১৯ তারিখ সকাল ১১টায় চলে আসুন বাশু বানান শুদ্ধকারী’র প্রতিবাদে যোগ দিতে।
বাংলাকে এভাবে অবজ্ঞার জবাবদিহি করতেই হবে। আসুন সবাই এক হই। যেমন বাংলাকে রক্ষায় একত্র হয়েছিলেন আমাদের পূর্বপুরুষ। এবার আমাদের আইন দরকার যা থামাবে এই নজরদারিহীন এবং জবাবদিহিতাহীন মানসিকতা।
কি থাকবন তো আমাদের পাশে?

বাশুপ্রতিবাদ৫দফা

শব্দঅবমাননাআইন_চাই_BANবান্ধobi

ছড়িয়েদিনবাশু_প্রতিবাদ

https://www.facebook.com/events/406509556561885/?ti=ia

Leave a comment