৯ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ , ২৪শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বার্তাটি লিখেছেন: মোঃ মাহফুজ আহমদ

আমার সম্পর্কে : প্রতিনিধি
প্রচ্ছদ বিভাগ খেলাধুলা

ফিরছেন সাকিব: ঘুরে দাঁড়াতে পারবে বাংলাদেশ

ভ্রমণ ক্লান্তির কারণে পাকিস্তানের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে খেলতে পারেননি। তবে এবার আর মাঠে নামতে বাধা নেই সাকিব আল হাসানের। কিউই অধিনায়ক কেনে উইলিয়ামসনের সঙ্গে আজ ক্রাইস্টচার্চের হ্যাগলি ওভালে টস করতে নামবেন সাকিবই।দলে অধিনায়কের প্রত্যাবর্তন। এমনিতেই সেরা ক্রিকেটার সাকিব। সে সঙ্গে দলের নেতৃত্বেও রয়েছেন। সব মিলিয়ে তার ফেরার সঙ্গে সঙ্গে দলের অন্য ক্রিকেটারদের মানসিকতায়ও পরিবর্তন আসার কথা। সেই পরিবর্তন কী সত্যিই আসবে? ত্রিদেশীয় সিরিজে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে কী সত্যিই ঘুরে দাঁড়াতে পারবে বাংলাদেশ?

টি-টোয়েন্টিতে শেষবার নেতৃত্ব পাওয়ার পর আজ এ নিয়ে তৃতীয়বার টস করতে নামবেন সাকিব। যদিও তার নেতৃত্বে ফেরার পর বাংলাদেশ ৯ম টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলতে নামছে। এই পরিসংখ্যানই বলে দেয়, কতটা অনুপস্থিত একটা দলের অধিনায়ক। বিশ্বের আর কোনো দলে, আর কোনো অধিনায়কের বেলায় এমনটা ঘটার কোনো নজির নেই।

সাকিব আল হাসান যেন একজন অতিথি। মন চাইলে খেলেন, মন চাইলে খেলেন না। দয়া করে যেন তিনি বাংলাদেশ দলের জার্সিটা গায়ে জড়ান। তাতেই যেন একেবারে ধন্য হয়ে যায় এ দেশের ক্রিকেট। অথচ, বিদেশের মাটিতে যে কোনো ধরনের ফ্রাঞ্চাইজি লিগ হলেই হলো, ডাক পড়লে সবার আগে সেখানে হাজির সাকিব আল হাসান।

আগেরদিনই পাকিস্তানের বিপক্ষে নিজেদের প্রথম ম্যাচ খেলেছে নিউজিল্যান্ড। এই ম্যাচে কিউরা বাধা পড়েছে ১৪৭ রানে। বাংলাদেশ দলেরও টি-টোয়েন্টিতে গড় স্কোর তেমনই। স্বাগতিকদের এই রানের মধ্যে আজ বেধে রাখতে পারলে হয়তো জয় সম্ভব। কারণ, বাংলাদেশ যে ক’টি ম্যাচে টি-টোয়েন্টিতে জয় পেয়েছে, সেগুলো এ ধরনের স্কোর দিয়েই।

যদিও এই একটি দিক ছাড়া বাংলাদেশের পক্ষে আর কোনো কিছুই কথা বলবে না। সব বলবে নিউজিল্যান্ডের পক্ষে। সুতরাং, বাংলাদেশ দলের ঘুরে দাঁড়ানো কঠিনই হবে আজ। তবুও যদি নিজেদের খোলস ছেড়ে বেরিয়ে এসে খেলতে পারে তারা!

কিন্তু সে সবের ছিটেফোটা টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশ দলে দেখাই যায় না। ‘ইন্টেন্ট’ থেকে ‘ইমপ্যাক্টে’র চর্চায় মেতে আছেন বাংলাদেশ দলের থিংকট্যাঙ্করা। কিন্তু মাঠের খেলায় তার ছিটেফোটাও নেই। যে দলের অধিনায়কেরই ঠিক নেই, যে দলের অধিনায়কের দলের অন্য ক্রিকেটারদের সঙ্গে একটা বন্ধন গড়ে তোলার তাগিদ অনুভব করে না, সে দলের ইম্প্যাক্টফুল খেলোয়াড় তৈরি হবে কিভাবে?

অথচ, থিঙ্কট্যাঙ্করাই সেই সুযোগ দিয়ে বসে আছেন। যেন সাকিবের দয়ায় তারা টিকে আছেন। যেন বাধ্য হয়েই অধিনায়ক করতে হয়েছে তাকে।তবুও, পারফরমার সাকিব অন্য। মাঠে নেমে পারফর্ম করে যদি দলকে জেতাতে পারেন, সবাই তার অতীত ভুলে যাবে। তিনি কী করেছেন, কী করেননি- সব ভুলে যাবে মানুষ। এখন অপেক্ষা শুধু সাকিবের জ্বলে ওঠার সঙ্গে দলেরও ঘুরে দাঁড়ানো।

Leave a comment