২রা মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ১৭ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

বার্তাটি লিখেছেন: Md Mahfuz ahmed

আমার সম্পর্কে : প্রতিনিধি
প্রচ্ছদ বিভাগ খেলাধুলা

মেসি বার্সা ছাড়লে পথে বসবে স্পেন সরকার!

অনলাইন ডেস্ক: করোনা মহামারির কারণে অর্থনৈতিক মন্দায় জর্জরিত স্প্যানিশ ক্লাব বার্সেলোনা। এক বিলিয়ন ডলারের বেশি ঋণের সাগরে ডুবেছে কাতালান ক্লাবটি।

এমন খবরের মধ্যে ফেব্রুয়ারির শুরুতে বোমা ফাটিয়েছিল স্প্যানিশ দৈনিক এল মুন্দো। বার্সায় চার বছরে মেসির আয়ের হিসাব ফাঁস করেছিল দৈনিকটি।

এল মুন্দো জানিয়েছিল, চার বছরের চুক্তি অনুযায়ী– ২০২১ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত সময়ে সব মিলিয়ে মেসিকে প্রায় পাঁচ হাজার ৭০০ কোটি টাকা (৫৫ কোটি ইউরোর বেশি) দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল বার্সা।

এ দাবির পক্ষে ২০১৭ সালে করা বার্সা-মেসির ৩০ পৃষ্ঠার চুক্তিপত্র ফাঁস করে দিয়ে এল মুন্দো প্রতিবেদন প্রকাশ করে– করোনা নয়; মেসির সঙ্গে অবিশ্বাস্য অঙ্কের এই চুক্তির কারণেই পথে বসার দশা কাতালানদের।

এমন প্রতিবেদনের তীব্র নিন্দা জানালেও এর চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করেনি বার্সা কর্তৃপক্ষ।
ওই প্রতিবেদনের দুই সপ্তাহ পার হওয়ার আগেই এবার বোমা ফাটাল আরেক স্প্যানিশ দৈনিক স্পোর্ত।

দৈনিকটি জানিয়েছে– মেসি বার্সা ছেড়ে পিএসজি বা ম্যানসিটিতে চলে গেলে পথে বসবে স্পেন সরকার! কারণ স্পেনের সর্বোচ্চ করদাতা মেসি। স্পেনের জন্য আর্জেন্টাইন এ খুদেরাজ সোনার ডিম পাড়া হাঁস।

এক প্রতিবেদনে স্পোর্ত জানায়, ২০১৭ সালের চুক্তির বিপরীতে চার বছরে স্পেন সরকারকে ৩৭ কোটি ইউরো (বাংলাদেশি মুদ্রায় তিন হাজার ৮০০ কোটি টাকা) কর দিয়েছেন মেসি।  এর মধ্যে ২৭ কোটি ৫০ লাখ ইউরো শুধু বেতন-বোনাসের বিপরীতে কর দিয়েছেন। পাশাপাশি স্পন্সরশিপ চুক্তি থেকে মেসি যা আয় করেন, তার বিপরীতেও মোটা অঙ্ক জমা হয় স্পেনের কোষাগারে।

এর আগে এল মুন্দো জানিয়েছিল,  চার বছরের চুক্তিতে সব মিলিয়ে মেসি প্রায় ৫৫ কোটি ৫২ লাখ ৩৭ হাজার ৬১৯ ইউরো আয় করেছেন। বাংলাদেশি মুদ্রায় পাঁচ হাজার ৭০৩ কোটি টাকা! সেই হিসাবে ২০১৭ সাল থেকে প্রতি মৌসুমে বার্সেলোনা থেকে মেসি আয় করেন ১৩ কোটি ৮০ লাখ ইউরো, যা বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় এক হাজার ৪১৮ কোটি টাকা!

২০১৭ সালে চার বছরের নতুন চুক্তির সময় সাইনিং বোনাস হিসাবে ১৫.২ মিলিয়ন ইউরো পেয়েছিলেন মেসি। দীর্ঘদিন একই ক্লাবে খেলায় আরও ৭৮ মিলিয়ন ইউরো বোনাস যোগ হয় তার খাতায়। এর বাইরে বছরে নির্ধারিত বেতন ১১৫ মিলিয়ন ইউরো তো রয়েছেই।

সব মিলিয়ে শুধু ক্লাব থেকেই মেসির বার্ষিক আয় ১৩৮ মিলিয়ন ইউরোর বেশি।

প্রসঙ্গত আর্জেন্টাইন খুদেরাজ লিওলেন মেসি মাত্র ১৩ বছর বয়সে ২০০০ সালে বার্সেলোনায় যোগ দেন। ২০০৪ সালে বার্সার জার্সি গায়ে মাঠে নামেন। দলটির হয়ে ৭৫৫টি প্রতিযোগিতামূলক ম্যাচে রেকর্ড ৬৫০ গোল করার পাশাপাশি সতীর্থদের দিয়ে ২৮০ গোল করিয়েছেন আর্জেন্টাইন তারকা।

ক্যারিয়ারের পুরোটা সময় বার্সেলোনাতেই খেলেছেন মেসি।  এখন পর্যন্ত দলটির হয়ে ১০টি লা লিগা, চারটি চ্যাম্পিয়নস লিগ ও চারটি কোপা দেল রেসহ অনেক শিরোপা জিতেছেন।

Leave a comment