৫ই ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ , ২০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

বার্তাটি লিখেছেন: আশফাকুর রহমান

আমার সম্পর্কে : বার্তা বিভাগ প্রধান
প্রচ্ছদ বিভাগ খেলাধুলা

আর্জেন্টিনা-ইসরায়েল প্রীতি ম্যাচ বাতিল

ডেস্ক নিউজ : আর্জেন্টিনা ফুটবল দলের আপত্তির কারণে ইসরায়েলের বিপক্ষে প্রীতি ফুটবল ম্যাচটি বাতিল করা হয়েছে। আগামী ৯ জুন জেরুজালেমের টেডি স্টেডিয়ামে ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। মঙ্গলবার (৫ জুন) দেশটির গণমাধ্যম এ খবর জানায়। এছাড়াও ফিলিস্তিনি একটি সামাজিক সংগঠন টুইট বার্তায় এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। আর্জেন্টিনার ক্রীড়া সংস্থার ওয়েবসাইট মিনুতুনোতে জানানো হয়, জেরুজালেমে আগামী শনিবারের নির্ধারিত ম্যাচটি বাতিল করা হয়েছে। সহিংসতা বৃদ্ধির সঙ্গে দলের অধিনায়ক লিওনেল মেসিকে হুমকি ও সমালোচনার শিকার হওয়ার আশঙ্কায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। আর্জেন্টিনার কোচ জর্জ সাম্পাওলি এখন বার্সেলোনায় একটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলাতে পারেন। রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত মাসে ইহুদিবাদ বিরোধী আন্তর্জাতিক আন্দোলন ‘বিডিএস’ আর্জেন্টিনাকে জোট থেকে বেরিয়ে যাওয়ার জন্য ক্যাম্পেইন শুরু করে। ক্যাম্পেইনয়ের একটি অংশ হিসেবে, ফিলিস্তিনির মোহাম্মদ খলিল নামে এক ফুটবল খেলোয়াড় সরাসরি মেসির কাছে আন্দোলনের বার্তা লিখে পাঠান। মোহাম্মদ খলিল বলেন, ‘আর্জেন্টিনার ফুটবল দল বিশেষ করে অধিনায়ক লিওনেল মেসি ফিলিস্তিনি ও গাজা উপত্যকায় অনেক জনপ্রিয়। খেলার স্টেডিয়ামটি আমাদের জমি দখল করে তৈরি করা।  তাই ফিলিস্তিনিদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য এবং ইসরায়েলের সঙ্গে নির্ধারিত খেলা বয়কট করার জন্য তাদের কাছে বার্তা পাঠিয়েছিলাম।’ গত ৩০ মার্চ ফিলিস্তিনিদের বিক্ষোভের সময় মোহাম্মদ খলিলকে লক্ষ্য করে ইসরায়েলি স্নাইপারা তার দুই পায়ে গুলি করে। এতে চিরকালের জন্য ফুটবলকে বিদায় জানান তিনি। এদিকে গত মাসের শেষের দিকে ফিলিস্তিনি ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের (পিএফএ) সভাপতি জিবরিল রাজৌব প্রীতি ম্যাচটি বাতিল করার জন্য আহ্বান জানান। তিনি আর্জেন্টিনার ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন, দক্ষিণ আমেরিকা ফুটবল কনফেডারেশন ও বিশ্ব ফুটবলের নিয়ন্ত্রক সংস্থা ফিফা’র কাছে পাঠানো এক চিঠিতে বলেন, খেলাকে রাজনীতিকরণ করা হচ্ছে। চিঠিতে জেরুজালেমের টেডি স্টেডিয়ামকে ইসরায়েলের বিপক্ষে আর্জেন্টিনার প্রীতি ফুটবল ম্যাচের ভেন্যু করার প্রতিবাদ জানিয়েছিলেন। টেডি স্টেডিয়ামটি যে ভূমিতে নির্মাণ করা হয়েছে এক সময় সেখানে একটি ফিলিস্তিনি গ্রাম ছিল। ১৯৪৮ সালে ইসরায়েল গ্রামটি দখল করে ধ্বংস করে দেয়। এ কারণে আর্জেন্টিনার ফুটবল দলের প্রীতি ম্যাচকে অনেক ফিলিস্তিনি সমর্থক মেনে নিতে পারেনি। চিঠিতে রাজৌব লিখেছেন, দখলদার ইসরায়েল খেলার সর্বজনীন মূল্যবোধ ও নৈতিকতা লঙ্ঘন করছে। তারা একই আর্জেন্টিনার জনগণকে বিপথে পরিচালিত করছে অখণ্ড জেরুজালেমকে ইহুদি মানুষের শহর দাবি করে। এ কারণেই ফিলিস্তিনিদের অনুরোধ, হুঁশিয়ারি ও বিশ্বব্যাপী সমালোচনার মুখে ইসরাইলি রাষ্ট্রের ৭০ বছর পূর্তির অংশ হিসেবে বিশ্বকাপের আগে পূর্বনির্ধারিত প্রস্তুতি ম্যাচটি বাতিল করল আর্জেন্টিনা।

 

Leave a comment