৩০শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ১৫ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বার্তাটি লিখেছেন: shuddhobarta24@

আমার সম্পর্কে : This author may not interusted to share anything with others
প্রচ্ছদ বিভাগ সিলেট

বিশ্বনাথ পকেটমার কাছে ত্রেতারা জিম্মি : এবার চুরির শিকার হন সাংবাদিক

পবিত্র ঈদ উল আযহাকে সামনে রেখে সিলেটের বিশ্বনাথে উপজেলা সক্রিয় হয়ে উঠেছে পকেটমার সিন্ডিকেট। তাদের তৎপরতায় প্রতি বছর কোরবানী পশুর হাটে ছিনতাইয়ের শিকার হন সাধারণ ক্রেতারা। শুধু তাই নয়, গরুর বাজারে অনেক পাইকারী বিক্রেতাও এ ধরণের ছিনতাইয়ের শিকার হন। গরুর বাজারে গরু ক্রয় করতে গিয়ে এমন ঘটনার শিকার হয়েছেন বিশ্বনাথ প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ও দৈনিক শুভ প্রতিদিনের সিনিয়র স্টাফ রিপোর্টার নবীন সোহেন। তিনি গরু ক্রয়ের টাকা বিক্রেতাকে দিতে গিয়ে পকেটে হাত দিতে দিতে টাকার বান্ডিল লাপাত্তা। অনেক খোঁজাখুজির পরও ভিরের মধ্যে টাকা কে নিয়ে গেছে আর খুঁজে পাওয়া যায়নি। একই দিন দুপুরে বিশ্বনাথ বাজারে আরো দুইটা চুরির খবর পাওয়া গেছে। রোববার (১৮ জুলাই) দুপুরে বিশ্বনাথে এমন ঘটনার খবর পাওয়া যায়। ঘটনার শিকার বিশ্বনাথ প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক নবীন সোহেল রোববার দুপুরে বিশ্বনাথ পুরানবাজারস্থ পশুর হাটে গুরু কিনতে যান।

বেশ কিছুক্ষণ বাজার ঘুরে বাজারে গরু দেখতে ছিলেন। এসময় হঠাৎ করে চোখের সামনে এক প্রতিবন্ধী বৃদ্ধ লোক মাটিতে পরে গেলে তাকে ধরতে যান। আর সেই মুহুর্তে পকেট থেকে ১ লক্ষ টাকা উধাও। এর আধা ঘন্টা পূর্বে আরেক ক্রেতা ছাগল কিনতে গেলে তার পকেটে থাকা ৭০ হাজার টাকা চুরির ঘটনা ঘটে। একই দিন উপজেলা সদরে দুটি বাসায় দিনে দুপুরে চুরির খবরে সাংবাদিকরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে দেখে আসছেন। টাকা চুরির ঘটনাটি মোবাইল ফোনে বিশ্বনাথ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) গাজী আতার রহমানকে অবগত করেন ভূক্তভোগী বিশ্বনাথ প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক নবীন সোহেল। তিনি বলেন, চোরেরা দলবদ্ধ হয়ে ভিড় সৃষ্টি করে, আর সেই ফাঁকে পকেট থেকে টাকা ছিনিয়ে নিয়ে যায়। তিনি জানান, পশুর হাটে আইনশৃঙ্খলাবাহিনী সদস্য মোতায়েন থাকার কথা থাকলেও সেই বাজারে কোন পুলিশ সদস্যের উপস্থিতি দেখা যায়নি।
এদিকে, এই ঘটনার পর পর বিশ্বনাথের সচেতন মহল উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। তারা বলেন, প্রতিবছর ঈদকে সামনে রেখে চোররা সক্রিয় হয়ে উঠে। এবারের উপজেলা সদরের প্রধান পশুর হাটে কোথাও কোন আইন শৃঙ্খলাবাহিনীর তৎপরতা দেখা যাচ্ছে না। আইন শৃঙ্খলাবাহিনীর তৎপরতা না থাকার ফলে দিনে দুপুরে উপজেলা সদরের মতো জায়গায় চুরির শিকার হচ্ছেন অনেকেই।

এব্যাপারে বিশ্বনাথ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গাজী আতাউর রহমান বলেন, খবর শুনেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করি। বর্তমানে পশুর হাটে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। আর উপজেলা সদরে বাসায় চুরির যে ঘটনা ঘটছে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে।

Leave a comment