২৮শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ , ১৩ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

বার্তাটি লিখেছেন: shuddhobarta24@

আমার সম্পর্কে : This author may not interusted to share anything with others
প্রচ্ছদ বিভাগ বাংলাদেশ

নতুন বাজেটে সামাজিক পরিবর্ত আসছে

জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে আগামী ৭ জুন সংসদে পেশ হতে যাচ্ছে ২০১৮-১৯ অর্থবছরের বাজেট। আর এই বাজেটে ভোটারদের খুশি রাখতে দেশের প্রান্তিক ও দরিদ্র জনগোষ্ঠীর ওপর বিশেষ নজর দেয়া হচ্ছে।”
বাজেটে দেশের প্রায় ১১ লাখ দরিদ্র মানুষকে সামাজিক সুরক্ষার আওতায় আনা হবে। ফলে এ কর্মসূচির আওতায় মোট উপকারভোগীর সংখ্যা দাঁড়াচ্ছে ৮৬ লাখ। পাশাপাশি বাজেটে প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তির টাকার পরিমাণ বাড়ানো হচ্ছে। ভাতার পরিমাণ বাড়ানো হচ্ছে হিজড়াসহ অনগ্রসর জনগোষ্ঠীরও। ইতোমধ্যে সরকারের দ্বিতীয় মেয়াদ শেষের এই বাজেটে সামাজিক সুরক্ষা কর্মসূচির সবকিছু চূড়ান্ত করা হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, বর্তমানে সরকার একজন মাতৃত্বকালীন মাকে ৫০০ টাকা ভাতা দিচ্ছে। আগামী বাজেটে এই ভাতার পরিমান বাড়িয়ে তা ৮০০ টাকা করা হবে। পাশাপাশি কর্মজীবী ল্যাকটেটিং মায়ের ( শিশুকে বুকের দুধ খাওয়ান এমন মা) ভাতাও ৫০০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৮০০ টাকা করা হচ্ছে। এছাড়া ভাতার মেয়াদ বাড়িয়ে ২ বছর থেকে ৩ করা হবার পরিকল্পনা রয়েছে।

 “এছাড়া ক্যান্সার, কিডনি, স্টোক, প্যারালাইজড ও জন্মগত হৃদরোগীদের আর্থিক সহায়তায় চলতি বাজেটে ৫০ কোটি টাকা বরাদ্দ থাকলেও নতুন বাজেটে ৭৫ কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়া হচ্ছে।”

“প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তি প্রাথমিক স্তরে ৫০০ থেকে বাড়িয়ে ৭০০ টাকা, মাধ্যমিক স্তরে ৬০০ থেকে বাড়িয়ে ৭৫০ টাকা, উচ্চ মাধ্যমিক স্তরে ৭০০ থেকে ৮৫০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।”

“হিজড়া, বেদে ও অনগ্রসর জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়ন কার্যক্রমের আওতায় উপবৃত্তি প্রাথমিক স্তরে ৩০০ থেকে বাড়িয়ে ৭০০ টাকা, মাধ্যমিক স্তরে ৪৫০ থেকে বাড়িয়ে ৮০০ টাকা, উচ্চ মাধ্যমিক স্তরে ৬০০ থেকে ১০০০ টাকা এবং উচ্চতর স্তরে ১০০০ থেকে বাড়িয়ে ১২০০ টাকা নির্ধারণ করা হচ্ছে।”

“চলতি ২০১৭-১৮ অর্থবছরের বাজেটে সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির আওতায় ৮টি খাতে ৭৫ লাখ জনগোষ্ঠীকে ভাতা দেয়া হচ্ছে। কিন্তু আসছে বাজেটে দেয়া হবে প্রায় ৮৬ লাখ দরিদ্র মানুষকে। অর্থাৎ প্রায় ১১ লাখ মানুষ যোগ হচ্ছে এই কর্মসূচির আওতায়।’

‘বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, এই কর্মসূচির আওতা বাড়ানোর মধ্য দিয়ে সরকার আগামী জাতীয় নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছে। মূলত ভোটারদের সন্তুষ্ট করতেই এ কর্মসূচির পরিধি বাড়ানো হচ্ছে।’

“নতুন এ সুবিধাভোগীর মধ্যে থাকছে বয়স্ক ভাতা কর্মসূচির আওতায় যোগ হচ্ছে ৫ লাখ মানুষ, বিধবা ভাতা কর্মসূচিতে আসছে ১ লাখ ৩৫ হাজার ও অসচ্ছল প্রতিবন্ধী ১ লাখ ৭৫ হাজার। পাশাপাশি আরও থাকছে প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তি ১০ হাজার, জীবনমান উন্নয়ন কর্মসূচিতে চা শ্রমিক ১০ হাজার, দারিদ্র্য মাতৃত্বকালীন মা ১ লাখ, কর্মজীবী ল্যাকটেটিং মা ৫০ হাজার ও ভিজিডির সুবিধাভোগী ৪০ হাজার।”

“সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ (সিপিডি) অতিরিক্ত গবেষণা পরিচালক খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম বলেন, এসডিজি অর্জনের লক্ষ্য হচ্ছে সমাজে পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীকে সরকারি বাজেটারি সহায়তা দেয়া। তবে লক্ষ্য রাখতে হবে, নতুন উপকারভোগীরা প্রকৃত ব্যক্তি কিনা। “যাচাই-বাছাইয়ের ক্ষেত্রে কোনো রাজনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গি এবং সহায়তা দেয়ার ক্ষেত্রে অঞ্চলভিত্তিক যেন না হয়।” সূত্র: যুগান্তর

Leave a comment