৩রা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ১৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বার্তাটি লিখেছেন: shuddhobarta24@

আমার সম্পর্কে : This author may not interusted to share anything with others
প্রচ্ছদ বিভাগ বাংলাদেশ

সাপাহারে ১২০ টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবার পাচ্ছে নতুন বাড়ি! প্রায় ৮০ ভাগ নির্মাণ কাজ সমাপ্ত

নয়ন বাবু, সাপাহার (নওগাঁ): নওগাঁর সাপাহারে মহান স্বাধীনতার স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবার্ষিকী (মুজিববর্ষ) উপলক্ষে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’র উপহার হিসেবে ১২০ টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবার পাচ্ছে নতুন বাড়ি। ভূমিহীন ও গৃহহীনদদের নতুন বাড়ি তৈরীর জন্য পুনর্বাসন প্রকল্পে গ্রহণ করেছেন সরকার।

নির্মানাধীন বাড়িগুলি নিয়মিত পরিদর্শন সহ সচ্ছতার সাথে কাজ দেখাশুনা করছেন সাপাহার উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনএ) কল্যাণ চৌধুরী।

ইউএনও কল্যাণ চৌধুরী জানান, মনোরম পরিবেশে আকাশী নীল টিনের ছাউনির তৈরী সারি সারি নির্মিয়মান বাড়িগুলো দেখে অসহায় ভূমিহীন পরিবারগুলোর মাঝে বিরাজ করছে উৎসবের আমেজ! চোখে মুখে উচ্ছ্বাসের বহিঃপ্রকাশ। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ওই ঘরে বসবাস করার অধীর আগ্রহে স্বপ্ন দেখছে গৃহহীন পরিবারগুলো।

“আশ্রয়নের অধিকার, শেখ হাসিনার উপহার” এই স্লোগাণ কে সামনে রেখে সাপাহার উপজেলায় ‘ক’ শ্রেণির গৃহহীন ও ভূমিহীনদের আশ্রয়ণ প্রকল্পের আওতায় প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া উপহার হিসেবে এসব বাড়ী নির্মাণ কাজ দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলেছে। ইতোমধ্যে নির্মাণাধীন ১২০ টি ঘরের প্রায় ৮০ ভাগ নির্মাণ কাজ সমাপ্ত হয়েছে। দৃশ্যমান হয়েছে এসব নির্মাণাধীন ঘরগুলো।

ইউএনও কল্যাণ চৌধুরী আরো জানান,
উপজেলা প্রশাসনের সার্বক্ষণিক তদারকি ও তত্বাবধায়নে ভূমিহীন ও গৃহহীনদের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর এ উপহার তুলে দেয়ার জন্য প্রস্তুতি কার্যক্রম চলমান রয়েছে। ইতোমধ্যে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদেরকে সম্পৃক্ত করে উপজেলার সাপাহার সদর, তিলনা, শিরন্টী, আইহাই, গোয়ালা ও পাতাড়ী ইউনিয়নের প্রকৃত গৃহহীন ও ভূমিহীন উপকারভোগীদের মাঝে ঘর বন্টণের সকল প্রক্রিয়া চুড়ান্ত করেছেন উপজেলা প্রশাসন।

কয়েকজন উপকারভোগীর সাথে কথা হলে জানা যায়, কেউ অন্যের বাড়িতে, কেউ ভাড়া বাড়িতে, আবার কেউ কেউ সরকারি খাস জমিতে কোন রকম কুঁড়ে ঘর তৈরি করে নিদারুণ কষ্টে দিন পার করছেন। বর্তমানে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে নির্মিত বাড়িগুলো দেখে তাঁরা নিজের ঘরে, নিজের একটি জায়গায় বসবাস করার স্বপ্ন বুনতে শুরু করেছে, কখন উঠবেন স্বপ্নের সেই ঘরে-এই ভাবনায় রয়েছে বিভোর।

পরিবারগুলো বলেন, এত সুন্দর ইটের বাড়িতে আমাদের বসবাসের সুযোগ হবে আমরা তা কখনোই ভাবিনী, তাছাড়া ইচ্ছে থাকলেও জায়গা কিনে বাড়ি তৈরির সামর্থ্য আমাদের নেই। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর এ উপহার আমাদের জন্য শুধু মাথা গোঁজার ঠাঁই নয় বরং একটি স্বপ্নের বাস্তবায়ন। আমরা চির কৃতজ্ঞ মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রতি সেই সাথে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি সাপাহার উপজেলা প্রশাসনকে।

উপজেলার তিলনা ইউপি চেয়ারম্যান মোসলেম উদ্দীন বলেন, আমার ইউনিয়নে ২৪ টি পরিবার এ সুবিধা পাচ্ছে। অত্যান্ত স্বচ্ছতার সাথে প্রাক্কলনের আলোকে মুজিব বর্ষে ভূমিহীন ও গৃহহীনদের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উপহার বাড়ি নির্মাণ কাজগুলো সম্পূর্ণ হচ্ছে। একাজে জনপ্রতিনিধি হিসেবে আমাকে সম্পৃক্ত করা হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনএ) কল্যাণ চৌধুরী’র সাথে এ বিষয়ে কথা হলে তিনি বলেন, বাস্তবায়নাধীন এসব প্রতিটি ঘরের জন্য মোট বরাদ্দ দেওয়া রয়েছে এক লাখ ৭১ হাজার টাকা। এতে রয়েছে একটি রান্নাঘর, একটি টয়লেট সহ সামনে খোলা বারান্দা। আমরা এ কাজে জনপ্রতিনিধিদেরকে সম্পৃক্ত করে সর্বোচ্চ সতর্কতা ও নিষ্ঠার সাথে দায়িত্বপালনের চেষ্টা করেছি। আশা করছি আর অল্প সময়ের মধ্যেই অবশিষ্ট নির্মাণ কাজ সমাপ্ত হবে। অসহায় মানুষগুলো বুঝে নিবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ভালোবাসার উপহার।

উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শাহজাহান হোসেন বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর এ ধরনের মানবিক উদ্যোগ সারাবিশ্বে বিরল এক দৃষ্টান্ত। আমাদের প্রধানমন্ত্রীর পক্ষেই সম্ভব এ ধরনের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে অবিচল থাকা। ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারদের জন্য নির্মাণাধীন ঘরগুলো স্বচ্ছ প্রক্রিয়ার মাধ্যমেই সু-সম্পূর্ণ হতে যাচ্ছে, এতে করে এ উপজেলায় ১২০ টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবার পাচ্ছেন নিজেদের আবাসস্থল।

Leave a comment