২১শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ৭ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

বার্তাটি লিখেছেন: আশফাকুর রহমান

আমার সম্পর্কে : বার্তা বিভাগ প্রধান
প্রচ্ছদ বিভাগ বাংলাদেশ

ভোট হবে জেনে গাজীপুরে আনন্দ

শুদ্ধবার্তাটোয়েন্টিফোর: গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচন স্থগিতের আদেশ বাতিল করে আগামী ২৮ জুনের মধ্যে ভোট করার নির্দেশ দিয়েছেন সর্বোচ্চ আদালত। এ খবর শোনার পর পরই গাজীপুরজুড়ে আনন্দোৎসব শুরু হয়। প্রধান দুই রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপির নেতাকর্মীসহ নানা শ্রেণি-পেশার মানুষ উল্লাস প্রকাশ করে মিষ্টি বিতরণ করেন। নগরীর কিছু স্থানে আনন্দ মিছিল ও শোভাযাত্রা বের করা হয়। গত ৬ মে হঠাৎ গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে স্থগিতাদেশ দেন হাইকোর্ট। এতে গাজীপুরের উৎসবমুখর পরিবেশ অনেকটা নিস্তব্ধ হয়ে পড়ে। বৃহস্পতিবার আপিল বিভাগ স্থগিতাদেশ বাতিল করলে গাজীপুরে ফের নির্বাচনি উদ্দীপনা ফিরে আসে। আপিল বিভাগের স্থগিতাদেশ বাতিলের সিদ্ধান্তে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মেয়রপ্রার্থী ও কর্মী-সমর্থকরা সন্তোষ প্রকাশ করেন। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গাজীপুর শহর ও টঙ্গীসহ সিটি করপোরেশনের বিভিন্ন এলাকায় মেয়রপ্রার্থীদের কর্মী-সমর্থকেরা আনন্দ মিছিল করেন। এতে নগরীর সাধারণ বাসিন্দারাও অংশ নেন। এসময় মেয়রপ্রার্থীদের কর্মী-সমর্থকেরা ওই সব এলাকার মানুষের মাঝে মিষ্টি বিতরণ করেন। এ ব্যাপারে এক প্রতিক্রিয়ায় আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়রপ্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ‘আওয়ামী লীগ নির্বাচনমুখী ও গণতন্ত্রের প্রতি শ্রদ্ধাশীল একটি দল। আওয়ামী লীগ সরকারকে বেকায়দায় ফেলতে ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ ষড়যন্ত্র করে আদালতের মাধ্যমে নির্বাচন স্থগিত করিয়েছিল। আল্লাহর অশেষ রহমতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুচিন্তিত পরামর্শে একটি আপিল পিটিশনের মাধ্যমে আইনি লড়াইয়ে ওই ষড়যন্ত্র রুখে দিতে সক্ষম হয়েছি।’ গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচন স্থগিতের আদেশ বাতিল করে আগামী ২৮ জুনের মধ্যে ভোট করার নির্দেশ দিয়েছেন সর্বোচ্চ আদালত। এ খবর শোনার পর পরই গাজীপুরজুড়ে আনন্দোৎসব শুরু হয়। প্রধান দুই রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপির নেতাকর্মীসহ নানা শ্রেণি-পেশার মানুষ উল্লাস প্রকাশ করে মিষ্টি বিতরণ করেন। নগরীর কিছু স্থানে আনন্দ মিছিল ও শোভাযাত্রা বের করা হয়। গত ৬ মে হঠাৎ গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে স্থগিতাদেশ দেন হাইকোর্ট। এতে গাজীপুরের উৎসবমুখর পরিবেশ অনেকটা নিস্তব্ধ হয়ে পড়ে। বৃহস্পতিবার আপিল বিভাগ স্থগিতাদেশ বাতিল করলে গাজীপুরে ফের নির্বাচনি উদ্দীপনা ফিরে আসে। আপিল বিভাগের স্থগিতাদেশ বাতিলের সিদ্ধান্তে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মেয়রপ্রার্থী ও কর্মী-সমর্থকরা সন্তোষ প্রকাশ করেন। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গাজীপুর শহর ও টঙ্গীসহ সিটি করপোরেশনের বিভিন্ন এলাকায় মেয়রপ্রার্থীদের কর্মী-সমর্থকেরা আনন্দ মিছিল করেন। এতে নগরীর সাধারণ বাসিন্দারাও অংশ নেন। এসময় মেয়রপ্রার্থীদের কর্মী-সমর্থকেরা ওই সব এলাকার মানুষের মাঝে মিষ্টি বিতরণ করেন। এ ব্যাপারে এক প্রতিক্রিয়ায় আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়রপ্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ‘আওয়ামী লীগ নির্বাচনমুখী ও গণতন্ত্রের প্রতি শ্রদ্ধাশীল একটি দল। আওয়ামী লীগ সরকারকে বেকায়দায় ফেলতে ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ ষড়যন্ত্র করে আদালতের মাধ্যমে নির্বাচন স্থগিত করিয়েছিল। আল্লাহর অশেষ রহমতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুচিন্তিত পরামর্শে একটি আপিল পিটিশনের মাধ্যমে আইনি লড়াইয়ে ওই ষড়যন্ত্র রুখে দিতে সক্ষম হয়েছি।’ জাহাঙ্গীর আলম আরও বলেন, ‘আমাদের এখানে যখন নির্বাচনি কার্যক্রম চলছিল, মার্কা পেয়ে প্রচারণা শুরু করেছি, তখন মওদুদ আহমেদের গভীর ষড়যন্ত্রে নির্বাচন স্থগিত হয়ে যায়। ব্যারিস্টার মওদুদের উদ্দেশ ছিল আওয়ামী লীগ, সরকার এবং প্রধানমন্ত্রীকে বেকায়দায় ফেলা। সরকারকে প্রশ্নবিদ্ধ করার জন্য তারা (বিএনপি) সুকৌশলে এ ষড়যন্ত্র করেছে। ভোট স্থগিতের পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে আমার কথা হয় এবং তিনিই বিষয়টি আদালতে মোকাবেলার নির্দেশ দেন।’ তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী এবং আমাদের সিনিয়র নেতাদের নির্দেশে আমি নিজেই হাইকোর্টে হাজির হয়ে আপিল করি। আদালত আমাদের আবেদন গ্রহণ করে আজ আদেশ দিয়েছেন।’ সন্ধ্যায় জাহাঙ্গীর আলম দলীয় কার্যালয়ে যান। সেখানে তিনি নেতাকর্মীদের উদ্দেশে বক্তব্য রাখেন। নির্বাচনের নতুন তারিখ ঘোষণার পর নতুন উদ্যমে নির্বাচনি কাজে নামার জন্য নেতাকর্মী-সমর্থকদের প্রতি আহ্বান জানান তিনি। এসময় উপস্থিত ছিলেন–  গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আব্দুর রউফ নয়ন, অ্যাডভোকেট আমজাদ হোসেন বাবুল, সাংগঠনিক সম্পাদক মজিবুর রহমান প্রমুখ। এদিকে, বৃহস্পতিবার বিকালে বিএনপির মেয়রপ্রার্থী হাসান উদ্দিন সরকার তার টঙ্গীর বাসভবনে সংবাদ সম্মেলন করে বলেন, ‘ষড়যন্ত্রমূলক এক রিট আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ৬ মে উচ্চ আদালত নির্বাচন স্থগিত করে দেন। ওই দিনই আমি তাৎক্ষণিক সংবাদ সম্মেলন ডেকে আইনি লড়াই, মাঠের লড়াই ও জনগণের ভোটের লড়াই চালিয়ে অধিকার প্রতিষ্ঠার ঘোষণা দিই। স্থগিতাদেশের বিরুদ্ধে পরদিন ৭ মে উচ্চ আদালতে আপিল করি। মহান আল্লাহর অশেষ মেহেরবানিতে আমি তাতে সফল হয়েছি। ভোটের লড়াইয়েও জনগণের সহযোগিতায় আমি সফল হবো, ইনশাআল্লাহ। গাজীপুর সিটিতে ধানের শীষের পক্ষে যে গণজোয়ার সৃষ্টি হয়েছে তা নস্যাৎ করতেই ষড়যন্ত্রমূলকভাবে নির্বাচন স্থগিত করা হয়।’

 

Leave a comment