৫ই জুন, ২০২০ ইং , ২২শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

বার্তাটি লিখেছেন: আশফাকুর রহমান

আমার সম্পর্কে : বার্তা বিভাগ প্রধান
প্রচ্ছদ বিভাগ সিলেট

বুধবারও দুই শতাধিক মানুষের কর্মসূচিতে যোগ দিয়েছিলেন নাদেল

আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) পরিচালক শফিউল আলম চৌধুরী নাদেলের করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) শনাক্ত হয়েছে। বৃহস্পতিবার ওসমানী মেডিকেল কলেজের পিসিআর ল্যাবে নমুনা পরীক্ষায় নাদেলের করোনা শনাক্ত হয়।

এর আগেরদিন বুধবার নাদেলের নমুনা সংগ্রহ করেন স্বাস্থ্যকর্মীরা। এদিকে একইদিনে সিলেট জেলা স্টেডিয়াম ক্রীড়া সংশ্লিষ্টদের একটি সহায়তা বিতরণ কর্মসূচিতে অংশ নেন নাদেল। এতে ক্রীড়া সংগঠক, সাংবাদিক, ক্রীড়াসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। সহায়তা নেওয়া ক্রীড়া পরিবারের দুইশ’ সদস্য নাদেলের হাত থেকেই সহায়তার খাম গ্রহণ করেন। নাদেলের করোনা শনাক্ত হওয়ার খবরে তাদের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

বুধবার সাবেক ও বর্তমান খেলোয়াড়, কোচ ও ক্রীড়া সংগঠকদের সহায়তা বিতরণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছিলেন সিলেট জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক শফিউল আলম নাদেল। এ ব্যাপারে তিনি বলেন, আমি এখন বুঝতে পারছি না কী করবো। বুধবার সেখানে অনেক মানুষ ছিলেন। অনেকেই ফোন দিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করছেন। তাদের সবার সাথে আলাপ করে আমরা সবাই করোনা পরীক্ষা করাবো কি না তা ঠিক করবো। তবে আপাতত ক’দিন আমি আর ঘর থেকে বের হবো না।

করোনা শনাক্ত হওয়া প্রসঙ্গে শফিউল আলম নাদেল বলেন, ছয়দিন পূর্বে আমার জ্বর হয়েছিলো। পরে ওষুধ খেয়ে কমে যায়। আর কোনো উপসর্গও আমার নেই। সন্দেহবশত বুধবার নমুনা সংগ্রহ করাই। বৃহস্পতিবার পরীক্ষায় করো্না পজেটিভ আসে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সিলেট বিভাগীয় কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক ডা. আনিসুর রহমান বলেন, করোনাভাইরাস খুব দ্রুত ছড়ায়। করোনা শনাক্ত হওয়া ব্যক্তির কাছাকাছি আসা অন্যদের শরীরেও এটি ছড়াতে পারে।

জানা যায়, বুধবার জ্বর অনুভব করায় নিজে থেকেই করোনা পরীক্ষার আগ্রহ প্রকাশ করেন নাদেল। এরপর ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের স্বাস্থ্যকর্মীরা তার বাসা থেকে নমুনা সংগ্রহ করে আনেন। তবে তার আগেই দুপুরে সিলেট স্টেডিয়ামে সহায়তা প্রদান অনুষ্ঠানে যোগ দেন তিনি।

সিলেট জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক ও সিলেট জেলা ফুটবল এসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট মাহি উদ্দিন আহমদ সেলিম তহবিল থেকে এই সহায়তা প্রদান করেন।

করোনা ভাইরাসজনিত সঙ্কটের কারণে সিলেট সিটি করপোরেশনসহ সিলেট জেলার ১৩ টি উপজেলার ফুটবল, ক্রিকেট, হকি, ভলিবল, অ্যাথলেটিক্স, কাবাডি, ব্যাডমিন্টনের প্রাক্তন ও বর্তমান খেলোয়াড়, কোচ ও ক্রীড়া সংগঠকদের এই সহায়তা প্রদান করা হয়।

Leave a comment