২রা ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ , ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

বার্তাটি লিখেছেন: আশফাকুর রহমান

আমার সম্পর্কে : বার্তা বিভাগ প্রধান
প্রচ্ছদ বিভাগ আন্তর্জাতিক

আজও জেলেই থাকতে হচ্ছে সালমানকে জামিন আবেদনের শুনানি কাল

ডেস্ক নিউজঃ যোধপুর দায়রা জজ আদালতে শুক্রবার (৬ এপ্রিল) বলিউড সুপারস্টার সালমান খানের জামিন আবেদন নিয়ে রায় দেওয়া হয়নি। কৃষ্ণসার হরিণ শিকারের ঘটনায় পাঁচ বছরের কারাদণ্ডপ্রাপ্ত সালমান খানের জামিন আবেদন নিয়ে শুক্রবার (৬ এপ্রিল) নির্ধারিত শুনানির পর আদালত জানিয়েছেন, শনিবারও (৭ এপ্রিল) শুনানি হবে।  জামিন না পাওয়ায় শুক্রবারও (৬ এপ্রিল) যোধপুর জেলেই রাত কাটাতে হবে সালমানকে।

সালমান খানের বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল তিনি ১৯৯৮ সালে যোধপুরের কাছে কানকানি গ্রামে দুটি বিরল প্রজাতির হরিণ শিকার করেছেন। সালমানসহ বলিউড তারকা সাইফ আলী খান, সোনালি বেন্দ্রে, নিলম ও টাবু একটি হিন্দি ছবির শুটিংয়ের জন্য সেখানে গিয়েছিলেন। ৫২ বছর বয়সী সালমান আগেই এ মামলায় নিজেকে নির্দোষ দাবি করে বলেছেন, হরিণ দুটি প্রাকৃতিক কারণেই মারা গেছে। বৃহস্পতিবার (৫ এপ্রিল) প্রায় বিশ বছর পুরনো এই মামলার রায় দিয়েছেন যোধপুরের ডিসট্রিক্ট প্রিজাইডিং অফিসার দেবকুমার খাত্রী। রায়ে সাইফ আলী খান, সোনালি বেন্দ্রে, নিলম ও টাবুকে খালাস দেওয়া হলেও সালমানকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়। হরিণ শিকারে সালমান খানকে ‘অভ্যস্ত আক্রমণকারী’ আখ্যা দেওয়া হয় আদালতের রায়ে। পরে তাকে যোধপুর সেন্ট্রাল জেলে পাঠানো হয়। রায় ঘোষণার পরপরই দায়রা জজ আদালতে জামিন আবেদন পেশ করেন সালমানের আইনজীবীরা। শুক্রবার জামিন আবেদনের শুনানির দিন নির্ধারণ হয়। ধারণা করা হচ্ছিলো, এদিনই এ ব্যাপারে আদালতের রায় জানানো যাবে। তবে শুক্রবার জামিন আবেদনের রায় ঘোষণা না করে শুনানি শনিবারও চলবে বলে জানান আদালত।

কারাদণ্ড পাওয়ার পর বৃহস্পতিবার যোধপুর সেন্ট্রাল জেলেই প্রথম রাতটি কাটিয়েছেন সালমান। জেলে তিনি কয়েদি নম্বর ১০৬। ২ নম্বর ব্যারাকের ২ নম্বর সেলে রয়েছেন তিনি। অন্য সাধারণ কয়েদিদের মতোই খাবার দেওয়া হয়েছে তাকে। রাতে খেতে দেওয়া হয় ছোলার ডাল আর রুটি। কিন্তু সালমান তা খাননি। বাইরে থেকেও খাবার আনাননি তিনি। শোয়ার জন্য ৪টি কম্বল দেওয়া হয় তাকে। জেল কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, রাতে মেঝেতেই শুয়েছেন বলিউডের ভাইজান।

এর আগে নিম্ন আদালত এই মামলার রায়ে সালমানকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছিল। ২০০৭ সালে প্রায় এক সপ্তাহ জেলও খাটতে হয়েছিল তাকে। রায়কে চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিলেন সালমান। হাইকোর্টের বিচারপতি নির্মলজিত কৌর বলিউড সুপারস্টারের আবেদনে সাড়া দিয়ে তাকে বেকসুর খালাস দেন। হাইকোর্টের রায়ে বলা হয়, সালমান খানের লাইসেন্স করা বন্দুকের গুলি মৃত প্রাণির শরীরে পাওয়া যায়নি, তাই সন্দেহাতীতভাবে অভিযোগ প্রমাণিত হয়নি। আর এজন্যই সালমানকে ‘বেনিফিট অব ডাউট’ দিয়ে মামলা থেকে দায়মুক্তি দেওয়া হয়।
রায়ের বিপরীতে রাজস্থান সরকার সালমানের দণ্ডের মেয়াদ বাড়ানোর জন্য আপিল করেছিল। সেই আবেদনের প্রেক্ষিতেই বৃহস্পতিবার সালমানের নতুন সাজা ঘোষিত হয়।

Leave a comment