১৮ই জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ৪ঠা মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

বার্তাটি লিখেছেন: বিপ্র দাস বিশু বিত্রম

আমার সম্পর্কে : নির্বাহী সম্পাদক
প্রচ্ছদ বিভাগ জীবনযাপন

বুঝেশুনে যোগব্যায়াম করুন, না হলে সমূহ বিপদ

শুদ্ধবার্তাটোয়েন্টিফোর: ভাল যোগ শিক্ষক আপনার শরীর বুঝে প্রেশক্রিপশন করে দিলে ও কিছু দিন ফলোআপ করার পর কেমন থাকছেন দেখে তাকে দৈনিক রুটিনে ফেলে দিলে, ঠিক আছে৷ কিন্তু তা না করে যদি ব্যথা–বেদনা সারাতে কি সুগার–প্রেশার–কোলেস্টেরল কমাতে, হার্ট–লাং ভাল রাখতে বা ফিটনেস বাড়াতে, স্ট্রেস ও ঘুমের সমস্যা কমাতে, যৌন জীবন ভাল করতে কি মনে শান্তি পেতে ৫০ জনের ক্লাসে ভর্তি হয়ে যান ও দলে পড়ে সব রকম ব্যায়াম শুরু করেন, বিপদ যে হবে না সে গ্যারান্টি নেই৷ কারণ যোগব্যায়াম কোনও ফ্যান্সি ফ্যাশন স্টেটমেন্ট বা ছাদে পায়চারি করার মতো নিরীহ ব্যাপার নয়, এক ধরনের চিকিৎসা৷ অন্য প্যাথি–র মতো প্যাথি৷ পুরনো যুগে, যখন আধুনিক–না-আধুনিক কোনও চিকিৎসা ছিল না, তখন মূলত যোগের সাহায্যেই মুনি–ঋষিরা শরীরে–মনে সুস্থ থাকতেন৷ মানসিকতাকে নিয়ে যেতে পারতেন উচ্চ মার্গে৷ সেই অর্থে একে ফিজিক্যাল মেডিসিন, এমনকী সাইকোসোমাটিক মেডিসিনও বলা যেতে পারে৷ সব ওষুধ যেমন সবার জন্য নয়, যোগও সে রকম৷ কাজেই ৮ থেকে ৮০, রোগী থেকে সুস্থ, সবাই এক জিনিস করতে গেলে বিপদ বাড়ার আশঙ্কা খুবই প্রবল৷

ধরুন, আপনি ঘোরতর আধুনিক জীবনযাপনে অভ্যস্ত৷ চেয়ার–টেবিলে খান, পড়াশোনা–আড্ডা বা কাজকর্ম চলে চেয়ারে বা সোফায় বসে৷ জন্ম থেকে কমোড ব্যবহার করেন৷ সিঁড়ি চড়া ধাতে নেই৷ বয়সটাও গুটি গুটি পায়ে এগোচ্ছে৷ হঠাৎ প্রবল পরাক্রমে মাটিতে বসে–শুয়ে, নেচে–কুঁদে শুরু করলেন যোগ৷ পদ্মাসন, বজ্রাসন, সর্বাঙ্গাসন, মৎসেন্দ্রাসন, সূর্য নমস্কার থেকে অ্যাডভান্স প্রাণায়াম, বাদ রইল না কিছুই৷ শরীরের যেখানে যেখানে হাত–পা পৌঁছয় না, সেখানে তাদের পাঠানোর জন্য ব্যকুল হয়ে পড়লেন৷ শরীরে–মনে কোনও লুকনো ব্যাধি আছে কি না, বাতের সূত্রপাত হয়েছে কি না, হাড়গোড় নরম হতে শুরু করেছে কি না, সে সব খোঁজও নিলেন না৷ কারণ, আপনার ধারণা, যোগব্যায়ামে ক্ষতি হয় না৷

আপনার ধারণাকে ভুল প্রমাণিত করে হাঁটু, কোমর, ঘাড়, পিঠ, কব্জি তথা শরীরের যে কোনও সন্ধি বা পেশীতে যে মারাত্মক ব্যথা শুরু হয়ে যাবে না, সে গ্যারান্টি নেই৷ সে ব্যথার মূলে থাকতে পারে সাধারণ মাসল পুল, লুকনো আর্থ্রাইটিসের প্রকাশ্যে আসা, স্লিপ ডিস্কের বাড়াবাড়ি, লিগামেন্ট বা ট্যান্ডন ছিঁড়ে যাওয়া ইত্যাদি৷ হাড় পাতলা হলে তাতে চিড় ধরেও সমস্যা হতে পারে, যা সারাতে পরে প্রচুর কাঠ–খড় পোড়াতে হয়৷ বা ধরুন হজমের গোলমাল সারাতে উড্ডীয়ান করছেন, ও দিকে হাইপ্রেশার, হৃদরোগ বা হাঁপানিতে যে উড্ডীয়ান ঠিক নয় তা জানা নেই৷ পদহস্তাসন করার আগে জেনে নিলেন না যে গ্লকোমা বা খুব বেশি প্রেশার থাকলে তা করা যায় না৷ কোমর বা ঘাড় ব্যথার ধাত থাকলে যে সামনে ঝুঁকে ব্যায়াম করলে তা বেড়ে যেতে পারে, তা না জেনে ব্যথা বাড়িয়ে ফেললেন৷ মানসিক স্থিতি ঠিক না থাকলে যে দীর্ঘ সময় ধরে মেডিটেশন বা যোগনিদ্রা চলে না, তা না জেনে বাড়ালেন সমস্যা৷

‘এ রকম রোগী আমরা প্রচুর পাই’, জানালেন অর্থোপেডিক সার্জেন ইন্দ্রজিৎ সরদার৷ ‘‘ধরুন ফ্রোজেন শোল্ডার হয়েছে, অনেক সময় যোগে তা কমে ঠিকই, কিন্তু সব সময়েই কমবে এমন নয়৷ কারণ, এ হল পেরিআর্থ্রাইটিক শোল্ডার, অর্থাৎ কিছু ক্ষেত্রে এর মধ্যে এমন কিছু সমস্যা লুকিয়ে থাকতে পারে, যার উত্তর অপারেশন বা অন্য থেরাপি৷ তখন যোগব্যায়াম করলে কী হবে বুঝতেই পারছেন৷ হাঁটু–কোমর–পিঠ–কাঁধ, সব ক্ষেত্রেই এক কথা৷ কী কারণে ব্যথা হচ্ছে তা না জেনে যোগ করলে সমস্যা বেড়ে যেতে পারে৷ আবার ব্যথা নেই বলেই সব আসন করতে পারবেন, এমনও নয়৷ বয়স, অনভ্যাস, লুকনো হাড়–পেশীর সমস্যা, অন্য অসুখ, ওজন, ফিটনেস, নমনীয়তা— সব কিছু বিচার করে তার পর ঠিক করতে হবে কোনটা করতে পারবেন আর কোনটা নয়৷ তবে হ্যাঁ, ক্রনিক অসুখে ভুগলে অনেক সময় দেখা যায় রোগের উন্নতি হলেও রোগী ঠিক ভাল বোধ করেন না৷ রোগ তাঁর মনেও অসুস্থতার ছাপ ফেলে৷ এ সব ক্ষেত্রে চিকিৎসার পাশাপাশি বিশেষজ্ঞের তত্ত্বাবধানে প্রাণায়াম ও মেডিটেশন করলে রোগী তাড়াতাড়ি সুস্থ হয়ে ওঠেন৷’’

বিভিন্ন স্টাডি থেকেও সে রকমই দেখা যায়৷ ২০০৮ সালে ফিনল্যান্ডের ১১০ জন অষ্টাঙ্গ যোগা প্র্যাকটিশনারের উপর সমীক্ষা করে ইন্টারন্যাশনাল জার্নাল অফ যোগা থেরাপিতে যে রিপোর্ট প্রকাশিত হয়, তাতে দেখা যায় এঁদের মধ্যে প্রায় ৬২ শতাংশের পেশী–সন্ধি ও হাড়ে এমন ধরনের চোট লেগেছে যা সারাতে সময় লেগেছে মাসখানেকেরও বেশি৷ আবার নিয়মিত যোগাভ্যাস করেন এমন ২৫০০ জন অস্ট্রেলিয়াবাসীর উপর ২০১২ সালে সমীক্ষা করে দেখা যায়, এই সংখ্যাটা নেমে এসেছে ২১ শতাংশে৷ বিশেষজ্ঞদের মতে, অষ্টাঙ্গ যোগব্যায়ামের অভ্যাস করা কিছুটা কষ্টসাধ্য বলে ঠিক ভাবে করতে না পারলে আঘাত লাগার আশঙ্কা বেশি থাকে৷

সাম্প্রতিক গবেষণা থেকে জানা গিয়েছে, সব ধরনের স্পোর্টস ইনজুরি মিলেমিশে যে সংখ্যাটা দাঁড়ায়, যোগ আজ একাই সেই সংখ্যাটা ছুঁয়ে ফেলেছে৷ শুধুমাত্র ভুল ভাবে ও ভুল কারণে যোগ করার জন্য হাতে নানা রকম ব্যথা হচ্ছে প্রতি ১০ জন মানুষের মধ্যে এক জনের৷ অনেকে আবার এই ব্যথার উপরেই প্র্যাকটিস চালিয়ে সংখ্যাটাকে প্রায় ৫ গুণ বাড়িয়ে ফেলেন৷

কিছু কিছু যোগের ভঙ্গিমা আছে, বিশেষ করে হঠ যোগে, যা করলে কিছু ক্ষেত্রে পেটের সমস্যা হয়৷ পর পর যে সিকোয়েন্সে আসনগুলি করার কথা, তা না করলেই সমস্যা হয় সচরাচর৷ কিছু যোগের ভঙ্গিমা এতই জটিল যে আমআদমি সহজে তা রপ্ত করতে পারেন না৷ ট্রেনার দক্ষ না হলেও বিপদ হয়৷ কুণ্ডলিনী যোগে বিশেষ করে৷ এখানে ভুলভাল হলে তার প্রভাবে মনের নানা সমস্যা হতে পারে৷ যাকে বলে কুণ্ডলিনী সিনড্রোম৷ সে তালিকায় উদ্বেগ, দুঃখ, ডিপ্রেশন, ভ্রান্তি, অনিদ্রা ইত্যাদির আশঙ্কা প্রবল৷ মানসিক সমস্যা থাকলে তা বেড়ে যেতে পারে৷ বাড়াবাড়ি ক্ষেত্রে তা পৌঁছে যেতে পারে পাগলামির দোরগোড়ায়৷ আত্মহত্যপ্রবণ হয়ে পড়তে পারেন মানুষ৷

এ বার আসি বিক্রম যোগ বা হট যোগের প্রসঙ্গে৷ ওজন কমাতে ও নমনীয়তা বাড়াতে এই পদ্ধতি এত কার্যকর যে তার আকর্ষণে মজেছেন বহু সেলিব্রিটি, বিশেষত পাশ্চাত্যে৷ এতে ১০০ ডিগ্রি ফারেনহাইট তাপমাত্রায় পর পর ২৬টি পোজ করতে হয়৷ প্রচুর ঘাম হয়, তার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে হয় কাজ৷ শারীরিক সক্ষমতা তুঙ্গে না থাকলে হয় কিছু অকাজও৷ গা–বমি করতে পারে৷ গ্রাস করতে পারে প্রবল ক্লান্তি৷ গুরুতর চোট লাগতে পারে৷ এমনকী মাথা ঘুরে, রক্তচাপ কমে শক-এ চলে যেতে পারেন মানুষ৷

কথা বলছিলাম যোগ বিশেষজ্ঞ দিব্যসুন্দর দাশের সঙ্গে৷ তিনি বললেন, ‘‘আজকাল যে মঞ্চে, টিভিতে ঢালাও যোগের প্রদর্শন চলছে, তা হল জেনারেল যোগ৷ কমবয়সী, নীরোগ ছেলেমেয়েরা করলে উপকার পাবে৷ তবে অসুখবিসুখ সারাতে গেলে বা বয়সে ভাটির টান ধরলে এই যোগা চলবে না৷ তখন প্রশিক্ষিত যোগবিদের কাছে করতে হবে থেরাপিউটিক বা রেমিডিয়াল যোগ৷ রোগ হলে যেমন ডাক্তার দেখিয়ে প্রেসক্রিপশন নিয়ে আসেন, এ হল তেমন ব্যাপার৷’’ তাঁর কথায়: ‘‘ট্রেনারের কাছে পদ্ধতি বুঝে বা কিছু দিন প্র্যাকটিস করে তবে নিজে করবেন৷ ফলোআপে আসতে হবে৷ ব্যায়ামের ফলে ভাল হচ্ছে না মন্দ, ডোজ বাড়াতে হবে না কমাতে, কিছু যোগ করতে হবে কি না সে সব বুঝে তবে ফাইনাল প্রেসক্রিপশন হবে৷ তার সঙ্গে যুক্ত হবে জীবনযাপনের নিয়ম৷ তবে আপনি সুস্থ থাকতে পারবেন৷’’

আজকের দ্রুতগতির জীবনের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে দিব্যসুন্দরবাবু চালু করেছেন এগজিকিউটিভ যোগ৷ ধরুন হাঁটু ব্যথা হচ্ছে, এ দিকে ব্যায়াম করার সময় নেই৷ অফিসে কাজের অবসরে মাঝে মাঝে টেবিলের নীচে বা গাড়িতে বসে পা সোজা মেলে দিয়ে থাইয়ের পেশী শক্ত করুন, ২০ সেকেন্ড পর ঢিলে করুন৷ সারা দিনে যত বার পারেন করবেন৷ বসে বসে কোমর ব্যথা? মাঝেমধ্যে উঠে দু’–একটা হালকা স্ট্রেচিং করুন৷ ভুঁড়ি বেড়ে যাচ্ছে? চলতে–ফিরতে বা বসে থাকার সময় পেটের পেশীকে টাইট করে ভিতরের দিকে টেনে রাখুন৷

‘আজকাল একটা বিপজ্জনক ট্রেন্ড দেখা দিয়েছে৷’ জানালেন তিনি। ‘‘ডিপ্রেশন বা অন্য কোনও জটিল মনোরোগে ভুগছে, এমন ছেলেমেয়েদের নিয়ে চলে আসছেন বাবা–মায়েরা৷ কারণ তাঁরা মনে করেন যোগ বা মেডিটেশন সর্বরোগহর৷ এ সব রোগীদের আমরা পত্রপাঠ মনোরোগ বিশেষজ্ঞের কাছে পাঠিয়ে দিই৷ ওষুধে–কাউন্সেলিংয়ে সুস্থ হলে তবে তাকে নিয়ে আসতে বলি৷ তখন অল্প করে যোগ ও প্রাণায়াম করালে বেশ ভাল ফল পাওয়া যায়৷’’

Leave a comment