১৩ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং , ২৮শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বার্তাটি লিখেছেন: Shuddho Barta

আমার সম্পর্কে : This author may not interusted to share anything with others
প্রচ্ছদ বিভাগ Uncategorizedজীবনযাপন

গার্লফ্রেন্ডের উৎসাহ তে আজ IPS অফিসার হলেন, ক্লাস 12th ফেল এই ট্রাক ড্রাইভার

এক সময় ধনী ব্যক্তিদের বাড়ির কুকুর দেখাশোনা, আবার কখনো ট্যাম্পো চালাতেন, প্রেমিকার উৎসাহে আজ আইপিএস অফিসার।

প্রত্যেক ব্যক্তির জীবনে কিছু না কিছু অনুপ্রেরণা থেকে থাকে এবং সেই ব্যক্তি এই উৎসাহের ভিত্তিতে এগিয়ে যায়।  এগুলি ছাড়াও তাদের দ্বারা করে থাকা সংঘর্ষ একদিন সফল হয়, মধ্য প্রদেশের এক ব্যক্তির এমনই একটি গল্প আছে যেখানে তিনি  সমস্ত নিন্ম মানের কাজ করেছেন  যাতে সে তার পড়াশোনায় খরচ বহন করতে পারে।এই ব্যক্তি কখনও কখনও ধনীব্যক্তিদের বাড়িতে একটি কুকুর কে দেখাশোনা করতেন,আবার কখনও কখনও ট্যাম্পো চালাতেন এবং তারপরে,একদিন তার বান্ধবীর নির্দেশে, আইপিএস পরীক্ষার প্রস্তুতি নেন এবং প্রথমবারেই তিনি সফলভাবে উত্তীর্ণ হন।

এক সময় ধনী ব্যক্তিদের বাড়ির কুকুর দেখাশোনা করতেন, আবার কখনো ট্যাম্পো চালাতেন:- প্রায়শই লোকেরা জীবনের সমস্ত পথ বন্ধ হয়ে গেছে কিন্তু সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়াতে এক গল্প চর্চার বিষয় হয়ে উঠেছে যেখানে একটি দ্বাদশ শ্রেণীর ফেল হওয়া ছাত্র আইপিএস অফিসার হয়ে উঠেছে। পরিস্থিতি এমন হয়ে উঠেছিল যার কারণে তাকে অটো চালিয়ে পড়াশুনা করতে হয়, এমনকি ভিক্ষুকদের সাথে ঘুমাতে ও হয়, কিন্তু গার্লফ্রেন্ডের উৎসাহে জীবন বদলে যায়,এটি দ্বাদশ শ্রেনী ফেল করে থাকা মনোজ শর্মার ঘটনা যেটিকে তার বন্ধু অনুরাগ পাঠক লেখেন।তিনি ২০০৫ সালের মহারাষ্ট্র ক্যাডারের একজন কর্মকর্তা এবং মনোজের সংগ্রামের গল্পটি বইটির মাধ্যমে তাঁর বন্ধু অনুরাগ পাঠক জানিয়েছেন। এর পরে মনোজ শর্মা সাক্ষাত্কারও দিয়েছেন যেখানে তিনি নিজের সম্পর্কে অনেক কিছুই বলেছিলেন।এক সাক্ষাত্কারে মনোজ শর্মা বলেছিলেন যে গ্রামে প্রাথমিক শিক্ষার কারণে তার ইংরেজি খুবই দুর্বল ছিল।ইউপিএসসির সাক্ষাত্কারের সময় তাকে জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল যে আপনি যদি ইংরেজি না জানেন তবে আপনি কীভাবে শাসন করবেন।এরপর সাক্ষাত্কারের সময় মনোজকে একটি অনুবাদকও দেওয়া হয়েছিল। মনোজ সাক্ষাত্কারে বলেছিলেন, ‘আমি ট্যুরিজমের বানানের জায়গায় টেরিরিজাম বানান লিখে দিয়েছিলাম’।

দ্বাদশ শ্রেণীতে যখন খারাপ ফলাফল আসে, লোকেরা প্রায়শই মৃত্যুকে আলিঙ্গন করে তবে মনোজ শর্মার এই গল্পটি সবাইকে অনুপ্রাণিত করতে পারে। মনোজ নবম,দশম ও একাদশ শ্রেণীতে তৃতীয় বিভাগ থেকে পাস করেছিলেন এবং দ্বাদশ শ্রেনীতে ব্যর্থ হন। এর পর মনোজ আর কী ঘটবে তা ভাবতে শুরু করেছিলেন কারণ খারাপ ফলাফলের কারণে তিনি আর কোথাও চাকরি পাবেন না। তারপরে তিনি ট্যাম্পো চালানো শুরু করলেন এবং তার বাড়ির অবস্থাও ভাল ছিল না যাতে তিনি আর পড়াশোনা করতে পারেন। তিনি তার ভাইয়ের সাথে একটি ট্যাম্পো চালাতেন এবং একদিন তার অটো একটি এসডিএম দ্বারা ধরা পড়ে,এবং এটি মনোজকে প্রভাবিত করে। মধ্যপ্রদেশ থেকে আগত মনোজ শর্মা গোয়ালিয়রে প্রস্তুতি শুরু করেছিলেন এবং এই সময়কালে কোনও অর্থ না থাকার কারণে ভিক্ষুকদের সাথে ঘুমাতেন এবং ধনী ব্যক্তিদের কুকুর দেখাশোনা করতেন।এই সময়ে তিনি লাইব্রেরিতে গার্ডের চাকরি পেয়েছিলেন। এখানে তিনি রাতে ডিউটি ​​দেওয়ার সময় বই ও পড়তেন।

মনোজ শর্মার প্রেমিকাও তার সঙ্গ দিয়েছিলেন:-দিল্লিতে অবস্থানকালে তাঁর এক প্রেমিকা হয়েছিল এবং এখানে মনোজ নিয়মিত ইউপিএসসি পরীক্ষা দিচ্ছিল। কিন্তু ইংরাজী দুর্বল হওয়ার কারণে,তার মানে বার করতে সক্ষম হয়ে উঠতে পারছিলেন না। তিনি তার একটি সাক্ষাত্কারে বলেছিলেন যে তিনি যে মেয়েটিকে ভালোবাসতেন তাকে তিনি বলেছিলেন যে যদি সে তার সাথে থাকে তবে তিনি সারা জগৎ পাল্টে দেবেন। এর পরে,তার গার্লফ্রেন্ড তাকে সমর্থন করে এবং উত্সাহিত করে। তারপরে মনোজ চতুর্থ প্রয়াসে আইপিএস পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। যখন তিনি ফলাফল পান,তখন তিনি অনেক কান্নাকাটি করেছিলেন কারণ দ্বাদশ শ্রেনীতে ব্যর্থতার কারণে লোকেরা তাকে তিরস্কার করেছিল, কিন্তু আজ তার জীবন বদলে গেছে।

Leave a comment